post
বাংলাদেশ

টানা দ্বিতীয়বার বেসিসের "সার্ভিস এন্ড ওয়েল ফেয়ার" সদস্য হলেন মাশরুল হোসাইন খান লিওন

বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) এর টানা দ্বিতীয় বারের মতো "সার্ভিস এন্ড ওয়েল ফেয়ার" এর স্থায়ী কমিটির সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন পিপলএনটেক ইন্সটিটিউট অফ আইটির ভাইস প্রেসিডেন্ট মাশরুল হোসাইন খান লিওন। মঙ্গলবার (১৭ জুলাই)  বেসিসের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে একটি তালিকা প্রকাশ করা হয়।বেসিসের সার্ভিস এন্ড ওয়েল ফেয়ার কমিটির আনিসুল হক ভুঞাকে চেয়ারম্যান করে ২২ সদস্যের একটি তালিকায় টানা দ্বিতীয় বারের মত মাশরুল হোসাইন খান লিওনকে সদস্য নির্বাচিত করা হয়।এর আগে ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারিতে সার্ভিস এন্ড ওয়েল ফেয়ার কমিটির সদস্য নির্বাচিত হোন পিপলএনটেকের ভাইস প্রেসিডেন্ট মাশরুল হোসাইন খান লিওন। টানা দ্বিতীয় বারের মত সদস্য নির্বাচিত হওয়ায় বেসিসের সকল কর্মকর্তাকে ধন্যবাদ জানিয়ে মাশরুল হোসাইন খান লিওন বলেন,  "১৯৯৮ সালে প্রতিষ্ঠিত  সংস্থা বেসিস দেশে গতিশীল সফটওয়্যার ও আইটি পরিষেবা শিল্পের উন্নয়নের লক্ষ্যে কাজ করে চলেছে। প্রতিটি কাজের স্বচ্ছতা রেখে স্মার্ট বাংলাদেশের জন্য সামনে থেকে প্রযুক্তি নির্মাতাদের হয়ে লীড দেয়ার জন্য স্মার্ট বেসিস প্রয়োজন। সবাইকে সঙ্গে নিয়ে 'সার্ভিস এন্ড ওয়েল ফেয়ারের সদস্য হয়ে স্মার্ট বেসিস নির্মাণ করার লক্ষ্যে অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই"।

post
নারী ও শিশু

তরুণ নারী উদ্যোক্তাদের জন্য অনুপ্রেরণা এবং সহযোগিতার এক অনন্য সভা

একটি দেশের সার্বিক উন্নয়নে নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠা ও ক্ষমতায়ন অপরিহার্য। ন্যায়পরায়ণ সমাজের জন্য নারী উদ্যোক্তাদের ক্ষমতায়ন নিয়ে সবসময় কাজ করে যাচ্ছে নারী মৈত্রী। সেই প্রেক্ষাপটে ‘স্পিকার সেশন অন এমপাওয়ারিং উইমেন এন্টারপ্রেনার্স ফর এন ইকুইটেবল সোসাইটি’ শীর্ষক এক বিশেষ বক্তৃতা অধিবেশন আয়োজন করেছে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা নারী মৈত্রী ও লেডিস অব লিবার্টি অ্যালায়েন্স (ললা)। শনিবার (১৩ জুলাই) সকাল ১১ টায় রাজধানীর আগারগাঁও নারী মৈত্রীর প্রধান কার্যালয়ের প্রফেসর লতিফা আকন্দ মিটিং রুমে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।নারী মৈত্রীর নির্বাহী পরিচালক শাহীন আকতার ডলি এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্পিকার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের এসএমই ও বিশেষ কর্মসূচি বিভাগের যুগ্ম পরিচালক শাহরিয়ার নাসরিন ও জয়িতা ফাউন্ডেশনের সিনিয়র উদ্যোক্তা মোছা: ফারজানা নাজনিন শাম্মি এবং অনুষ্ঠানের বিষয় বস্তু উপস্থাপন করেন লোলা ঢাকা বাংলাদেশের চ্যাপ্টার লিডার জেড বি নিশাত ।শাহীন আকতার ডলি বলেন “আমাদের আজকের এই আয়োজনের মূল উদ্দেশ্য নারীদের উদ্যোক্তা সম্পর্কিত উদ্যোগ এবং নেতৃত্বের ভূমিকা অনুসরণ করতে অনুপ্রাণিত করা, উদ্যোক্তাদের চ্যালেঞ্জগুলো অতিক্রম করার জন্য ব্যবহারিক পরামর্শ এবং কৌশল প্রদান করা, পারস্পরিক সমর্থন এবং সহযোগিতার জন্য উচ্চাকাঙ্ক্ষী এবং প্রতিষ্ঠিত নারী উদ্যোক্তাদের মধ্যে সংযোগ সহজতর করা। নারী মৈত্রী সবসময়ই নারী উদ্যোক্তাদের জন্য অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করে যাচ্ছে এবং একটি ন্যায়সঙ্গত সমাজ গঠনে তরুন নারী উদ্যোক্তাদের পাশে সর্বদা থাকার আশ্বাস দেন তিনি।  ফারজানা নাজনিন শাম্মি বলেন ‘বর্তমান যুগে নারীরা কোনভাবে পিছিয়ে নেই। পুরুষদের সাথে তাল মিলিয়ে তারাও বিভিন্নভাবে সফলতা অর্জন করছে এবং এগিয়ে যাচ্ছে। একজন নারী উদ্যোক্তা হওয়ার অনেক উপায় আছে যা সঠিকভাবে কাজে লাগাতে পারলে সফলতা নিশ্চিত। নারী উদ্যোক্তা হওয়ার জন্য নিজের লক্ষ্য ও দক্ষতা শনাক্ত করা, নিজেকে আত্মবিশ্বাসী করে তোলা, ব্যবসার পূর্ব পরিকল্পনা করা, দক্ষতা অর্জন করা, নেটওয়ার্কিং বৃদ্ধি করা এবং নিজের পরিচয় তৈরি করতে বিশেষ পরামর্শ দেন তিনি। নারী মৈত্রী এবং ললার উদ্দ্যেশে তরুণ নারী উদ্যোক্তাদের ক্ষমতায়ন নিয়ে এই বিশেষ আয়োজনের জন্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের এসএমই ও বিশেষ কর্মসূচি বিভাগের যুগ্ম পরিচালক শাহরিয়ার নাসরিন। তরুণ নারী উদ্যোক্তাদের অনুপ্রেরণার জন্য তিনি বলেন- এই ডিজিটাল যুগে হাজার হাজার সম্ভাবনা নিয়ে বাংলাদেশে প্রতিনিয়ত তৈরি হচ্ছে এক একজন নারী উদ্যোক্তা এবং বৃদ্ধি পাচ্ছে নারীর ক্ষমতায়ন। দেশের ক্রমবর্ধমান অর্থনীতিতে নারী উদ্যোক্তারা বিশেষ জায়গা করে নিয়েছে। ফলে সরকার নারী উদ্যোক্তাদের উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন ধরনের পদক্ষেপ নিচ্ছে এবং তা বাস্তবায়ন করছে। নারী উদ্যোক্তারা দেশের গণ্ডি পেরিয়ে আন্তর্জাতিকভাবেও ব্যবসা করার সুযোগ পাচ্ছে যা খুবই প্রশংসনীয়। আমি আশা রাখি আজকের তরুন উদ্যোক্তারাই একদিন আমাদের দেশে সুনাম বয়ে নিয়ে আসবে।“ পাশাপাশি তিনি জানান বাংলাদেশ ব্যাংক এ রয়েছে ৩ হাজার কোটি টাকা তহবিল যেখানে সুদ মাত্র ৫%। এছাড়াও আর্থিক সাক্ষরতার বিষয়ে ট্রেইনিং প্রদান করে যাচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক এবং বাংলাদেশ ব্যাংকে রয়েছে নারী উদ্যোক্তা ইউনিট যেখানে নারী উদ্যোক্তারা তাদের সমস্যার কথা তুলে ধরতে পারবে।

post
বাংলাদেশ

বাংলা ব্লকেড আন্দোলনের কারনে যাত্রী চাপ মেট্রোরেলে, স্টেশনে উপচে পড়া ভিড়

সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে রাজধানীর বিভিন্ন সড়ক অবরোধ করে রেখেছেন আন্দোলনকারীরা। এ কারণে রাজধানীজুড়ে ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। এর চাপ পড়েছে মেট্রোরেলের ওপর। যাত্রীদের চাপ সামলাতে মতিঝিল স্টেশনে প্রবেশ ফটক বন্ধ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।আজ বিকেল পৌনে চারটায় কারওয়ান বাজার মেট্রো স্টেশনে গিয়ে দেখা যায়, বসুন্ধরা সিটি প্রান্তের প্রবেশমুখে যাত্রীদের ভিড় সিঁড়ি পর্যন্ত চলে এসেছে। স্টেশনের ভেতরে ঠাঁই নেই অবস্থা। টিকিট কাউন্টার ও টিকিট কেনার মেশিনের সামনে উপচে পড়া ভিড়।মিরপুর যাওয়ার জন্য মেট্রো স্টেশনে এসেছেন আনিসুর রহমান। সঙ্গে তাঁর স্ত্রী ও মেয়ে। তিনি বলেন, ‘নিচে গাড়ি নেই দেখে হেঁটে মেট্রো স্টেশনে এসেছি। এখনো স্টেশনে ঢুকতেই পারিনি। কতক্ষণে টিকিট কেটে ট্রেন পাব বুঝতে পারছি না। নিচে দাঁড়িয়ে থেকেও তো লাভ নেই।’সরকারি চাকরিতে নিয়োগে ‘অযৌক্তিক ও বৈষম্যমূলক’ কোটা বাতিল এবং সংবিধানে উল্লিখিত অনগ্রসর গোষ্ঠীর জন্য সংরক্ষিত কোটাকে ন্যূনতম মাত্রায় এনে সংসদে আইন পাস করার দাবিতে রাজধানীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক অবরোধ করেছেন শিক্ষার্থীরা। আজ বুধবার বেলা সোয়া ১১টার দিকে শিক্ষার্থীদের একটি দল শাহবাগ মোড়ের সড়ক অবরোধ করে। এ ছাড়া কারওয়ান বাজার, বিজয় সরণি, আগারগাঁও, সায়েন্স ল্যাবরেটরি, ফার্মগেটসহ রাজধানীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক অবরোধ করেছেন আন্দোলনকারীরা।রাজধানীর প্রায় সব সড়কে যানবাহন স্থবির হয়ে আছে। লোকজন অনেকটা বাধ্য হয়ে মেট্রো স্টেশনে ছুটছেন, কিন্তু সেখানেও যাত্রীর চাপে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে।

post
এনআরবি বিশ্ব

আরব আমিরাতে সড়ক দুর্ঘটনায় ৫ প্রবাসী বাংলাদেশির মৃত্যু

সংযুক্ত আরব আমিরাতে সড়ক দুর্ঘটনায় পাঁচ বাংলাদেশি নিহত হয়েছে। নিহতরা ঢাকার নবাবগঞ্জ ও দোহার থানার বাসিন্দা বলে জানা গেছে। আমিরাতের আজমান প্রদেশে তারা বসবাস করতেন। রোববার (৭ জুলাই) বাংলাদেশ সময় সকাল সাড়ে ১০টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।নিহত প্রবাসীরা হলেন– নবাবগঞ্জের বালেঙ্গা গ্রামের লুৎফর রহমানের ছেলে মো. রানা (৩০), আব্দুল হাকিমের ছেলে মো. রাশেদ (৩২), শেখ ইরশাদের ছেলে মো. রাজু (২৪), শেখ ইব্রাহীমের ছেলে ইবাদুল ইসলাম (৩৪) এবং দোহার বাজার এলাকার মো. মঞ্জুর ছেলে মো. হিরা মিয়া (২২)। তারা একই জায়গায় কাজ করতেন।বাংলাদেশ বিজনেস কাউন্সিল আজমানের প্রেসিডেন্ট জিল্লুর রহমান জানান, স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ৭টার দিকে উল্লিখিত পাঁচ প্রবাসী কাজের উদ্দেশে বের হয়ে আবুধাবি যাচ্ছিলেন। এসময় রাস্তায় তাদের বহন করা গাড়িটি আবুধাবির রাস্তার সাহামা এলাকায় দুর্ঘটনার শিকার হয়। এতে ঘটনাস্থলেই পাঁচজনের মৃত্যু হয়। এর মধ্যে নবাবগঞ্জের জয়কৃষ্ণপুর ইউনিয়নের বালেঙ্গা গ্রামের চারজন ও দোহার উপজেলার দোহার বাজার এলাকার একজন রয়েছেন।বাংলাদেশ কনস্যুলেটের কনসাল জেনারেল বি এম জামাল হোসেন বলেন, দুর্ঘটনা প্রসঙ্গে জেনেছি। বিষয়টি নিয়ে আরও বিস্তারিত জানতে কনস্যুলেটের পক্ষ থেকে স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে।

post
বাংলাদেশ

কোটা বাতিলের দাবিতে আজ বিকেলে সারাদেশে ‘বাংলা ব্লকেড’

সরকারি চাকরিতে কোটাব্যবস্থা বাতিল করে ২০১৮ সালে সরকারের জারি করা পরিপত্র পুনর্বহালের দাবিতে সারাদেশে গুরুত্বপূর্ণ সড়ক–মহাসড়ক অবরোধের ডাক দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। তারা এই কর্মসূচির নাম দিয়েছেন “বাংলা ব্লকেড”। শনিবার (৬ জুলাই) ঢাকার শাহবাগে আন্দোলনকারীদের পক্ষ থেকে এ ঘোষণা দেওয়া হয়। বিকেল ৩টা থেকে “বাংলা ব্লকেড” কর্মসূচি পালন করা হবে। শনিবার শিক্ষার্থীরা দাবি আদায়ে পূর্বনির্ধারিত বিক্ষোভ কর্মসূচি শেষে শাহবাগ অবরোধ করেন। অবরোধের কারণে শাহবাগ মোড় দিয়ে সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ থাকায় তীব্র যানজট তৈরি হয়। দুর্ভোগে পড়েন মানুষ। অবরোধ তুলে নেওয়ার আগে আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নাহিদ হাসান বলেন, “(রবিবার) বিকেল ৩টা থেকে ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচি ঘোষণা করা হলো। শুধু শাহবাগ মোড় নয়, শাহবাগ ও ঢাকা শহরের সায়েন্সল্যাব, চানখাঁরপুল, নীলক্ষেত, মতিঝিলসহ প্রতিটি পয়েন্টে বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজগুলোর শিক্ষার্থীরা নেমে এসে কর্মসূচি সফল করবেন। ঢাকার বাইরের জেলা ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে শিক্ষার্থীরা মহাসড়ক অবরোধ করবেন” পূর্বনির্ধারিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে কোটাবিরোধী আন্দোলনকারীরা শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করেন। এছাড়াও টাঙ্গাইল, রাজশাহী, রংপুর ও কুষ্টিয়ায় মহাসড়ক এবং ঢাকার তাঁতীবাজার মোড় ও খুলনায় সড়ক অবরোধ করেন তারা।

post
প্রযুক্তি

ন্যাশনাল স্টিম অলিম্পিয়াডের সমাপনী ও গ্র্যান্ড ফিনালে অনুষ্ঠিত

আইটেসারেক্ট টেকনোলজির উদ্যোগে ন্যাশনাল স্টিম অলিম্পিয়াডের গ্র্যান্ড ফিনালে অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার  বেলা ১২টায় ঢাকার শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরে গ্র্যান্ড ফিনালে অনুষ্ঠিত হয়।বিজ্ঞান, প্রযুক্তি, প্রকৌশল, শিল্পকলা ও গণিত (এসটিইএএম) বিষয়ে শিক্ষার্থীদের ব্যতিক্রমী ও উদ্ভাবনী প্রতিভা প্রদর্শনের জন্য এই জমকালো অনুষ্ঠানে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আগত প্রাথমিক থেকে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের শিক্ষার্থীরা অংশ নেন।অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে অনলাইনে উপস্থিত ছিলেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রী ও ন্যাশনাল স্টিম অলিম্পিয়াডের প্রধান পৃষ্ঠপোষক ডা. দীপু মনি।এতে সভাপতিত্ব করেন ন্যাশনাল স্টিম অলিম্পিয়াডের আহ্বায়ক ও প্রধান উপদেষ্টা বিশ্ববিদ্যালয়ের মঞ্জুরী কমিশনের সদস্য প্রফেসর ড. সাজ্জাদ হোসেন।সকাল ৯ টা থেকে কুইজ এবং প্রজেক্ট প্রদর্শনী শুরু হয় এবং দুপুর ১২টা থেকে সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের কার্যক্রম শুরু হয়। সারা দেশ থেকে শত শত শিক্ষার্থী, শিক্ষকসহ ইন্ডাস্ট্রিয়ালিস্টরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।ন্যাশনাল স্টিম অলিম্পিয়াড-২০২৩ তরুণদের প্রতিভার উন্মেষ ঘটানোর জন্য একটি অসাধারণ আয়োজন।উদ্ভাবন ও বুদ্ধিবৃত্তিক চর্চার সংস্কৃতি গড়ে তোলার মাধ্যমে চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের উপযোগী দক্ষ জনশক্তি ও স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার জন্য এ ধরনের প্রতিযোগিতা প্রতিবছর আয়োজন করা হবে।এ অলিম্পিয়াডে ছয়টি ভিন্ন ভিন্ন লেভেলের শিক্ষার্থীরা মোট আটটি বিভাগে কোনো রেজিস্ট্রেশন ফি ছাড়াই অংশগ্রহণ করেন। সারা দেশে ৩১০টি স্কুল, ৬১টি বিশ্ববিদ্যালয়, ১৩২টি কলেজ, ২২টি পলিটেকনিক প্রতিষ্ঠান এবং ২৫টি মাদ্রাসা থেকে কুইজ এবং প্রোজেক্টে নিবন্ধিত শিক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ৫৭ হাজার ৯৭৬ জন। কুইজ নিবন্ধন সংখ্যা ছিল ৫৫ হাজার ৭৪৯। প্রোজেক্টের জন্য নিবন্ধন সংখ্যা ছিল ২ হাজার ২২৭ এবং ৫৩ জন মেন্টর এবং বিচারক হিসেবে কাজ করেছেন।এ ছাড়া সারা দেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ৩০টি ক্লাব, ২৯০ জন ক্যাম্পাস অ্যাম্বাসেডর এবং ৪ হাজার ৭০২ জন ভলান্টিয়ার প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে এ অলিম্পিয়াডে যুক্ত ছিলেন।আয়োজকরা জানান, চতুর্থ শিল্প বিপ্লব সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দক্ষতার ওপর গুরুত্ব আরোপ করে আসন্ন চ্যালেঞ্জ ও পরিবর্তনের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণে শিক্ষার্থীদের সচেতনতা ও দক্ষতা উন্নয়নে উৎসাহিত করাই ন্যাশনাল স্টিম অলিম্পিয়াডের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য। পাঁচটি বিষয়ের ওপর জোর দিয়ে এই অলিম্পিয়াড আয়োজন করা হয়েছে।এর মধ্যে আছে তরুণদের মধ্যে স্টিম (সায়েন্স, টেকনোলজি, ইঞ্জিনিয়ারিং, আর্টস, ম্যাথম্যাটিকস) সচেতনতা বৃদ্ধি ও দক্ষ জাতি গঠনে সহায়তা করা। কলকারখানা ও বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠানে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের সুযোগ কাজে লাগানোর মাধ্যমে ব্যাপক উন্নতি সাধনে তরুণদের উপযোগী করে তোলা। স্টিম সম্পর্কিত বিষয়গুলোতে উচ্চশিক্ষা, সমস্যা সমাধান, উদ্ভাবন ও গবেষণায় শিক্ষার্থীদের উদ্বুদ্ধ করা। শিক্ষার্থীদের স্মার্ট বাংলাদেশ ২০৪১ রূপকল্প বাস্তবায়নে অবদান রাখতে অনুপ্রেরণা দেয়া। শিক্ষার্থীদের হাতে-কলমে ব্যবহারিক শিক্ষার প্রতি আগ্রহী করে তোলার পাশাপাশি মানবিক ও দায়িত্বশীল হতে সহায়তা করাও এ আয়োজনের উদ্দেশ্য।বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় সংসদের হুইপ অ্যাডভোকেট সানজিদা খানম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. এ এস এম মাসুদ কামাল, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. সত্যপ্রসাদ মজুমদার, বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ, এডিএন গ্রুপের চেয়ারম্যান আসিফ মাহমুদ এবং প্রাইম ব্যাংকের ম্যানেজিং ডিরেক্টর এবং সিইও হাসান ও রশিদ।সমাপনী অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের মাঝে বক্তব্য রাখেন ন্যাশনাল স্টিম অলিম্পিয়াডের উপদেষ্টা ও বুয়েটের প্রো-ভিসি অধ্যাপক ড. আব্দুল জব্বার খান, অলিম্পিয়াডের উপদেষ্টা ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোবোটিক্স বিভাগের অধ্যাপক ড. লাফিফা জামাল ও ই-জেনারেশন পিএলসির চেয়ারম্যান শামিম আহসান।

post
বাংলাদেশ

মা ও শিশুর সুস্বাস্থ্য নিশ্চিতকরণে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের সংশোধনী দ্রুত পাসের দাবি

মা ও শিশুর সুস্বাস্থ্য নিশ্চিতকরণে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের সংশোধনী দ্রুত পাসের দাবি জানান তামাক বিরোধী মায়েদের ফোরাম।বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই) সকাল ১১ টায় রাজধানী কৃষিবিদ ইনষ্টিটিউট বাংলাদেশে নারী মৈত্রী আয়োজিত ‘‘তামাক বিরোধী মায়েদের ফোরাম‘’ গঠন বিষয়ক সভায় এ দাবি জানান তারা।নারী মৈত্রীর নির্বাহী পরিচালক শাহীন আকতার ডলির সভাপতিত্বে ১৫ জন বিশিষ্ট মা নিয়ে গঠিত তামাক বিরোধী মায়েদের ফোরাম এর আহ্বায়ক ছিলেন সাবেক এমপি এবং তামাক বিরোধী সংসদীয় নারী ফোরামের সাবেক সদস্য জনাব শিরিন নাঈম পূনম। সহ আহ্বায়ক ছিলেন সাবেক এমপি নার্গিস রহমান।অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনাব মোস্তাফিজুর রহমান, লীড পলিসি এডভাইজর, ক্যাম্পেইন ফর টোব্যাকো ফ্রি কিডস বাংলাদেশ এবং প্রাক্তন চেয়ারম্যান,বিসিআইসি, বাংলাদেশ। অনুষ্ঠানে বিশেষ আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনাব মোঃ আব্দুস সালাম মিয়া, প্রোগ্রাম ম্যানেজারস ,ক্যাম্পেইন ফর টোব্যাকো ফ্রি কিডস বাংলাদেশ। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সুলতানা রাজিয়া পান্না।নারী মৈত্রীর নির্বাহী পরিচালক শাহীন আকতার ডলি বলেন “ তামাক নারী স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। ধূমপান না করে পরোক্ষ ধূমপানের শিকার হচ্ছেন তারা।“ এছাড়া পাবলিক প্লেস, গণ পরিবহণ, রেস্টুরেন্ট এবং ধূমপানের জন্য সকল নির্ধারিত স্থান বাতিলের জন্য যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্য মায়েদের ফোরামের কাছে আহ্বানে জানান তিনি।তামাকমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে ফোরামের সদস্যগণ যথাযথ ভূমিকা রাখবেন বলে মনে করেন ফোরাম এর আহ্বায়ক শিরিন নাঈম পূনম। তিনি বলেন “তামাকের কারনে প্রতিদিন ৪৪২ জন মানুষের প্রান ঝরছে। মৃত্যুর এই মিছিল ঠেকাতে এই ফোরাম তামাক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন সংশোধনের দাবিতে নিরলস সমর্থন ও পরামর্শ দেবেন। পাশাপাশি নিজের পরিবারকে তামাকের প্রভাবমুক্ত রাখবেন এবং অন্যান্য মায়েদের সাথে এই বিষয়ে কথা বলবেন। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় যাতে মন্ত্রীসভায় সংশোধিত আইনটি দ্রুত উত্থাপন করেন সে লক্ষ্যে সহযোগিতা করা এবং অনুমোদনের জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জোরালো দাবী জানানোর জন্য ফোরাম কাজ করে যাবে।“এছাড়া তামাক দ্রব্যের উপর কার্যকর কর আরোপের জন্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ড ও অর্থ মন্ত্রণালয়ের কাছে জোর দাবী জানানো এবং তামাক কোম্পানীর কূটকৌশল বা তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনকে বাধাগ্রস্ত করার বিরুদ্ধে সক্রিয় অবস্থান গ্রহন করবেন বলে আশ্বাস জানান তিনি।ক্যাম্পেইন ফর ট্যোবাক ফ্রি কিডস বাংলাদেশ প্রোগ্রামস ম্যানেজার মো. আব্দুস সালাম মিয়া বলেন, তামাকের প্রতি আসক্তি যুবসমাজকে ফেলে দিচ্ছে এক অন্ধকার জগতে। অল্প বয়সেই শিশু-কিশোররা ধূমপানে আসক্ত হয়ে পড়ছে। ভয়ঙ্কর শারীরিক অসুস্থতার মুখোমুখি হওয়ার পাশাপাশি মানসিকভাবেও বিপর্যস্ত হয়ে পড়ছে তারা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার উদ্যোগে বিভিন্ন দেশে ‘গ্লোবাল ইয়ুথ টোব্যাকো জরিপ’ শিরোনামে একটি জরিপ পরিচালনা করা হয়। ১৩ থেকে ১৫ বছর বয়সীদের মধ্যে পরিচালিত এ জরিপ প্রতিবেদনে ভারত, ইন্দোনেশিয়া এবং বাংলাদেশে ধূমপান আসক্ত কিশোর-কিশোরীর হার সবচেয়ে বেশি। বাংলাদেশে প্রায় ১২ শতাংশ কিশোর-কিশোরী নিয়মিত ধূমপানে আসক্ত।মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, “পরোক্ষ ধূমপান নারীদের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। পরোক্ষ ধূমপানের কারনে নারীদের অকালে গর্ভপাত, অপরিণত শিশুর জন্ম, স্বল্প ওজনের শিশু, গর্ভকালীন রক্তক্ষরণ, প্রসবের সময় অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ, মৃত শিশুর জন্ম দেয়াসহ নানা সমস্যা দেখা দেয়। গ্লোবাল এডাল্ট টোব্যাকো সার্ভে ২০১৭ তথ্য মতে, ধুমপান না করওে পরোক্ষভাবে ধূমপানরে শকিার হয় ৩ কোটি ৮৪ লাখ মানুষ। যার মধ্যে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে নারী ও শিশু। তাই আমার দৃঢ় বিশ্বাস “তামাক বিরোধী মায়েদের ফোরাম” ভবিষ্যৎ প্রজন্মের সুস্বাস্থ্য নিশ্চিতে তামাকের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবে এবং তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের সংশোধনী দ্রুত পাসের দাবিতে জোরালো পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন “এছড়াও ফোরামের অন্যান্য সদস্যগণ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতিশ্রুত ২০৪০ সালের মধ্যে তামাকমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের সংশোধনী প্রস্তাব দ্রুত পাশের জোর দাবি জানান।

post
বাংলাদেশ

পূর্ব রাজাবাজারে বাড়ির মালিকের গাড়ি চাপায় দারোয়ানের মৃত্যু

রাজধানীর পূর্ব রাজাবাজারে অবস্থিত বাসার মালিকের গাড়ির চাপায় ফজলুল হক নামের এক দারোয়ানের মৃত্যু হয়েছে।বৃহস্পতিবার (৩ জুলাই) সকালের দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।চালক ছিলেন মফিদুল ইসলাম, গাড়ির স্টিকারে দেখা যায় তিনি একজন মুক্তিযোদ্ধা।বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শেরে বাংলা নগর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আনোয়ার খান।আনোয়ার খান বলেন, সকালে পূর্ব রাজাবাজারের একটি বাসা (১৯/এ, ১৯/১) থেকে মালিক গাড়ি বের করছিলেন। এসময় দারোয়ান ফজলুল হক গ্যারেজের দরজার সামনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। হঠাৎ করে গাড়িটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গ্যারেজের দরজায় ধাক্কা দেয়। এ সময় গাড়িটি গ্যারেজের দরজার দাঁড়িয়ে থাকা ফজলুল হকের ওপরে উঠে যায়। এতে তিনি ঘটনাস্থলেই মারা যান।তিনি বলেন, আমরা ঘটনাস্থলে আছি, বিষয়টি তদন্ত করে দেখছি। মরদেহের সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।এ ঘটনায় আইনি প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে বলেও জানান তিনি।ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের পূর্ব রাজাবাজার ২৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফরিদুর রহমান খান ইরান, তিনি বলেন প্রাথমিক তদন্তে যা দেখলাম তাহলো গাড়িটির মালিক দারোয়ানকে সজোরে আঘাত করার ফলে তার মৃত্যু হয়। এখানে দুটি বিষয়ে গুঞ্জন শুনছি, ফ্লাটের মালিক গাড়ি চালনায় অজ্ঞ হতে পারে অথবা ক্ষোভ থেকে দারোয়ান কে গাড়ি চাপা দিতে পারে। তবে এবিষয়ে পুলিশের তদন্তের মাধ্যমে আমরা সঠিক বিষয় জানতে পারবো।ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত চেয়ে দারোয়ানের পরিবারের ক্ষতিপূরণ দাবি করেন কাউন্সিলর ইরান।

post
বাংলাদেশ

পিপলএনটেকে ২০২০-২০২১ পলিটেকনিক শিক্ষার্থীদের ইন্ডাস্ট্রিয়াল অ্যাটাচমেন্টের ক্লাস শুরু

হারুন উর রশিদ : কারিগরি ও কর্ম উপযোগী শিক্ষা একটি দেশের শিল্প উন্নয়নের জন্য দক্ষ কারিগরি জ্ঞানে শিক্ষিত ও অভিজ্ঞ কর্মী তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ। এই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশের বিভিন্ন পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট থেকে বাস্তবসম্মত শিক্ষা ও দক্ষতা অর্জনের লক্ষ্যে পিপলএনটেক ইন্সটিটিউট অফ আইটিতে ইন্ডাস্ট্রিয়াল অ্যাটাচমেন্টের ক্লাস শুরু হয়েছে।মঙ্গলবার (২রা জুলাই ) রাজধানীর গ্রীনরোড পান্থপথে পিপলএনটেক ইন্সটিটিউট অফ আইটি কার্যালয়ে সারাদেশের ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষের পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীদের ৩ মাস মেয়াদী ‘স্কিল ডেভেলপমেন্টে প্রায় পাঁচ শতাধিক শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে ইন্ডাস্ট্রিয়াল অ্যাটাচমেন্টের প্রায় ১৫টি কোর্সের উদ্বোধনী ক্লাস অনুষ্ঠিত হয়।পিপলএনটেকে আগত সকল শিক্ষার্থীদের শুভেচ্ছা জানান প্রতিষ্ঠানটির ভাইস প্রেসিডেন্ট মাশরুল হোসাইন খান লিওন। এসময় তিনি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন," পিপলএনটেক এমন একটি আইটি প্রতিষ্ঠান যারা শুধু কোর্স করানোর মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়, কোর্স শেষে তাদের চাকরি নিয়ে চিন্তা করতে হয় না'।প্রশিক্ষণার্থী শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তিনি আরও বলেন, 'আপনারা কোর্স শেষ করে নিজেকে অভিজ্ঞ হিসেবে গড়ে তুলুন, অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ব্যক্তিদের চাকরির ব্যবস্থা আমরাই করে দিবো'।প্রশিক্ষণ শেষে ইন্ডাস্ট্রিয়াল অ্যাটাচমেন্টের দক্ষ শিক্ষার্থীদের জন্য পিপলএনটেক সহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে ইন্টার্নশিপ করার সুযোগ করে দেওয়ার ঘোষণা দেন প্রতিষ্ঠানটির সিওও আব্দুল হামিদ।এসময় উপস্থিত ছিলেন পিপলএনটেক ইন্সটিটিউট অফ আইটির চীফ অপারেটিং অফিসার আব্দুল হামিদ, পিপলএনটেকের ডেপুটি ম্যানেজার শেখ আহমেদ, সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্টের টিম লিডার হাফিজুর রহমান , সিনিয়র এক্সিকিউটিভ নূর নবী, সিনিয়র এক্সিকিউটিভ মনজুরুল ইসলাম ও আশরাফুল মোরশেদ সহ অনেকে।

post
প্রযুক্তি

ন্যাশনাল স্টিম অলিম্পিয়াড ২০২৩ এর সমাপণী ও গ্র্যান্ড ফিনালে ৬ জুলাই

আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্স, রোবোটিকস,বিজ্ঞান, প্রযুক্তি, প্রকৌশল, শিল্পকলা এবং গণিত (STEAM) বিষয়ে শিক্ষার্থীদের জন্য ব্যতিক্রমী আয়োজন ন্যাশনাল স্টিম অলিম্পিয়াড ২০২৩ এর সমাপনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে । আগামী (৬ জুলাই) বেলা ৩টায় ঢাকা শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় ও আইটেসারেক্ট টেকনোলজির উদ্যোগে ন্যাশনাল স্টিম অলিম্পিয়াড ২০২৩ এর সমাপণী ও গ্র্যান্ড ফিনালে অনুষ্ঠান। বিজ্ঞান, প্রযুক্তি, প্রকৌশল, শিল্পকলা এবং গণিত (STEAM) বিষয়ে শিক্ষার্থীদের ব্যতিক্রমী ও উদ্ভাবনী প্রতিভা প্রদর্শনের জন্য এই জমকালো অনুষ্ঠানে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আগত প্রাথমিক থেকে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করবেন।অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সমাজকল্যান মন্ত্রী এবং ন্যাশনাল স্টিম অলিম্পিয়াডের প্রধান পৃষ্ঠপোষক ডা: দীপু মনি, এম.পি।অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন ন্যাশনাল স্টিম অলিম্পিয়াডের আহ্বায়ক ও প্রধান উপদেষ্টা ইউজিসি'র সদস্য প্রফেসর ড. সাজ্জাদ হোসেন।সকাল ৯ টা থেকে কুইজ এবং প্রজেক্ট প্রদর্শনী শুরু হবে এবং দুপুর ৩ টা থেকে সমাপণী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান শুরু হবে। সারাদেশ থেকে হাজার হাজার শিক্ষার্থী, শিক্ষকবৃন্দ সহ ইন্ডাস্ট্রিয়ালিস্টরা প্রোগ্রামে উপস্থিত থাকবেন বলে জানিয়েছেন অনুষ্ঠানের প্রধান সমন্বয়ক আব্দুল হামিদ। বিভিন্ন শিক্ষাবিদরা মনে করছেন, ন্যাশনাল স্টিম অলিম্পিয়াড ২০২৩ তরুণদের প্রতিভার উন্মেষ ঘটানোর জন্য একটি অসাধারণ আয়োজন। উদ্ভাবন ও বুদ্ধিবৃত্তিক চর্চার সংস্কৃতি গড়ে তোলার মাধ্যমে চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের উপযোগী দক্ষ জনশক্তি ও স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার জন্য এ ধরনের প্রতিযোগিতার প্রতিবছর আয়োজন করা উচিত। ০৬ টি ভিন্ন ভিন্ন লেভেলের শিক্ষার্থীরা মোট ০৮ টি বিভাগে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করবেন। সকাল ৯ থেকে দুপুর ২ টা পর্যন্ত সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে।আয়োজকরা জানান, চতুর্থ শিল্প বিপ্লব সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দক্ষতার ওপর গুরুত্ব আরোপ করে আসন্ন চ্যালেঞ্জ ও পরিবর্তনের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণে শিক্ষার্থীদের সচেতনতা ও দক্ষতা উন্নয়নে উৎসাহিত করাই ন্যাশনাল স্টিম অলিম্পিয়াডের মিশন ও ভিশন।তাঁরা বলেন, পাঁচটি বিষয়ের উপর জোড় দিয়ে এই অলিম্পিয়াড আয়োজন করা হয়েছে। এর মধ্যে আছে তরুণদের মধ্যে স্টিম (সায়েন্স, টেকনোলজি, ইঞ্জিনিয়ারিং, আর্টস, ম্যাথম্যাটিকস) সচেতনতা বৃদ্ধি ও দক্ষ জাতি গঠনে সহায়তা করা। কলকারখানা ও বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠানে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের সুযোগ কাজে লাগানোর মাধ্যমে ব্যাপক উন্নতি সাধনে তরুণদের উপযোগী করে তোলা। স্টিম সম্পর্কিত বিষয়গুলোতে উচ্চশিক্ষা, সমস্যা সমাধান, উদ্ভাবন ও গবেষণায় শিক্ষার্থীদের উদ্বুদ্ধ করা। শিক্ষার্থীদের স্মার্ট বাংলাদেশ ২০৪১ রূপকল্প বাস্তবায়নে অবদান রাখতে অনুপ্রেরণা দেওয়া। শিক্ষার্থীদের হাতে কলমে ব্যবহারিক শিক্ষার প্রতি আগ্রহী করে তোলার পাশাপাশি মানবিক ও দায়িত্বশীল হতে সহায়তা করাও এ আয়োজনের উদ্দেশ্য।এর আগে, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় দেশে সব স্তরের ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে গত ১৫ মার্চ থেকে শুরু হয় ন্যাশনাল স্টিম অলিম্পিয়াড-২০২৩ প্রতিযোগিতা।

About Us

NRBC is an open news and tele video entertainment platform for non-residential Bengali network across the globe with no-business vision just to deliver news to the Bengali community.